Sunday, April 01, 2007

সিঙ্গুলারিটি

একটা লেখায় আগে মৃত্যু নিয়ে লিখেছিলাম, বেশ কিছু ভবিষ্যদ্বানী, অথবা আশার কথা ছিল, কিন্তু কিসের ভিত্তিতে লিখলাম সেটা পরিষ্কার ছিল না৷ আসলে পুরোটা সময় নিয়ে লেখা দরকার, ভালভাবে লেখার আগে আশে পাশের আরো কয়েকটা ব্যপার আলোচনা না করলে অসম্পুর্ন থেকে যাবে৷ আপাত দৃষ্টিতে সম্পর্কহীন কয়েকটা বিষয়ের মধ্যে সংযোগটা দেখানো দরকার, তাহলে হয়তো পরবর্তি কয়েক দশকে আমাদের সম্ভাব্য গতিবিধি নিয়ে যেগুলো তুলে ধরব সেটা যুক্তিসঙ্গত মনে হবে৷

সায়েন্সের বেশ কিছু আলাদা ধারা অনেক সময় অভিন্ন লক্ষে গিয়ে পৌছায়, যদিও প্রাথমিক ঊদ্দ্যেশ্য ভিন্ন ছিল৷ ঠিক আজকে ২০০৭ এ যদি বিশ্নেষন করি তাহলে জেনেটিক্স, ন্যানো এঞ্জিনিয়ারিং আর আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে যথেষ্ট আলাদা মনে হবে৷ সত্যিকার অর্থে খুব কম বিশ্ববিদ্যালয়ে জেনেটিক্স বিষয়টি এঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টির অধীনে৷ আবার ন্যানোটেকনোলজি যেমন সচরাচর সরাসরি কম্পিউটার সায়েন্সের বিষয় হিসেবে ধরা হয় না৷ রোবোটিক্স সে তুলনায় কম্পিউটার সায়েন্সের পুরোনো বিষয়গুলোর একটা, একসময় বিশেষ করে ৭০ এর দশকে যতটা প্রমিজিং ফিল্ড ছিল হয়তো এখন পাবলিক পারসেপশনে এর জৌলুশ কিছুটা কমে গিয়েছে বলেই মনে হয়৷ পাবলিকের কথা যখন চলেই আসল আরও কিছু কথা না বললেই নয়৷ যেমন স্পেস (মহাশুন্য) এক্সপ্লোরেশন, ষাট আর সত্তুর দশকে আমেরিকা, রাশিয়ার মধ্যে যখন প্রতিযোগিতা যখন তুঙ্গে তখন সাধারন ধারনা ছিল কয়েক দশকেই মানুষ গ্রহে গ্রহে বসতি স্থাপন করবে৷ আজকে ৩০ বছর পর আমরা দেখতে পাচ্ছি এখনও মঙ্গল গ্রহেই যাওয়া হয়নি৷ আবার ৭০ দশকে ইনফরমেশন টেকনোলজি যে ভেতরে ভেতরে প্রস্তুত হচ্ছিল পরের ২০ বছর গোটা পৃথিবী দখলে নেয়ার জন্য সেটা কিন্তু পরিস্কার ছিল না৷

আবার যেমন ইন্টারনেট, ৩০ বছরের বেশী সময় ধরেই আছে, মুলত মার্কিন সামরিক বাহিনীর জন্য স্থাপন করা হয়েছিল, কিন্তু ইন্টারনেট যে এমন বিপ্লব ঘটাবে গোটা দুনিয়া জুড়ে বেশীরভাগের ধারনায় ছিল না৷ ৭০ বা ৮০র দশকে তৈরী তেমন কোন সায়েন্স ফিকশনেই ইন্টারনেটের উল্লেখ নেই৷ প্রথমে বিপ্লবটা ছিল গবেষকদের জন্য, তারপর ৯০ এর দশকে বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গুলোর জন্য আর এখন ইন্টারনেট স্মরনকালের সবচেয়ে বড় সামাজিক বিপ্লব ঘটাচ্ছে৷ তবে দুএকজন লোক আছেন যারা তাদের ভবিষ্যদ্বানী মিলাতে পেরেছেন৷ অবশ্য এরা কোন ওরাকল নন (ম্যাট্রিক্সে ছিল), যেমন রে কুর্যওয়াইল৷ অবশ্য সিঙ্গুলারিটির সম্ভাব্যতা বোঝার জন্য সবসময় ফুলটাইম গবেষক হওয়ার দরকার নেই৷ রে’র স্পেকুলেশন পুরোটা হয়তো মিলবে না, প্রয়োজনও নেই, কিন্তু যেটা পরিস্কার তা হচ্ছে সিঙ্গুলারিটি আসছে, আমাদের বেশীর ভাগের জীবদ্দশাতেই ঘটবে, হয়তো ২০৩০ এ, হয়তো এর আগেই, নাহলে এর অল্প পরে৷

৯০এর দশকে ঠিক যেমন বেশ কয়েকটি প্রযুক্তিগত অগ্রগতির জন্য হঠাত্ করেই কয়েকদশকের পুরোনো ইন্টারনেট দ্রুতই বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ল, সিঙ্গুলারিটিও ঠিক এরকম সায়েন্সের আলাদা কয়েকটা শাখার অগ্রগতির ওপর নির্ভর করছে৷ তার মধ্যে প্রধান তিনটি হচ্ছে Genetics, Nanotechnology, আর Robotics (GNR)৷ আমার ধারনা শেষমেশ GNR এর R মুলধারায় পরিনত হবে৷

এখন বলা যাক সিঙ্গুলারিটি আসলে কি৷ সিঙ্গুলারিটি আসলে আসলে টেকনোলজির এমন একটা পর্যায় যখন মানুষের তৈরী যন্ত্রের বুদ্ধি মানুষের চেয়ে বেশী হবে৷ একটু অস্বাভাবিক শোনায় বটে, তবে ভয়ের কিছু নেই৷ অবশ্য যন্ত্র এর মধ্যেই অনেক বুদ্ধিবৃত্তিক কাজ আমাদের চেয়ে ভালোভাবে করে৷ যেকোন ক্যালকুলেটর আমাদের যে কারও চেয়ে নির্ভুলভাবে এবং দ্রুতগতিতে হিসাব করতে পারে৷ একটা সময় ছিল দাবার মতো বুদ্ধির খেলা শুধু মানুষ করতে পারে বলে কল্পনা করা হতো৷ IBM এই উপলক্ষে একটা বড় প্রজেক্ট হাতে নেয় (
Deep Blue), ১৯৯৭ এ তখনকার চ্যাম্পিয়ন গ্যারী কাসপারভ ডীপ ব্লুর কাছে হেরে যান৷ পরিস্থিতি এখন এমন যে পৃথিবীতে এমন কোন মানুষ নেই যে দাবাতে কম্পিউটারকে (ডীপ ব্লু) হারাতে পারে৷ কাসপারভ ম্যাচের পরে বলেছিলেন যে মেশিন এমন সব ক্রিয়েটিভ চাল দিচ্ছিল যে কাসপারভ বুঝতে পারছিলেন না৷ এর পর অবশ্য আরও ১০ বছর পার হয়েছে, মুরের সুত্র অনুযায়ী মেশিন জ্যামিতিক গতিতে তার বুদ্ধি বাড়িয়েছে৷ মেশিন নিয়মিত এমন সব সার্কিট ডিজাইন করে যা মানুষের পক্ষে ঊদ্ভাবন করা দুঃসাধ্য৷ তবে সব ব্যাপারে মানুষকে ছাড়িয়ে যেতে আরও সময় লাগবে, হয়তো আরো ২৫ বছর, ওই সময়টাই আমাদের সভ্যতা সিঙ্গুলারিটিতে পৌছবে৷ মানুষের ১০ হাজার বছরের সভ্যতার সবচেয়ে বড় ঘটনা হবে সিঙ্গুলারিটি৷ মানব সভ্যতার একটা বস্তুগত পরিবর্তন হবে, হয়তো পরবর্তি অংশ বায়োলজিকাল মানুষের চেয়ে যন্ত্রের সভ্যতা হিসেবে অভাবনীয় গতিতে সামনে যেতে থাকবে৷ তবে পরিবর্তনটা হঠাত করে হবে না, আস্তে আস্তে হতে হতে আমাদের গা সহা হয়ে যাবে, যে যেদিন হবে তার আগেই বুঝে যাব যে এটা অবধারিত ছিল৷

পরের লেখা গুলোয় আমি বিস্তৃত করব সিঙ্গুলারিটিতে কিভাবে পৌছানো যায়, আমাদের কি লাভ৷ তার আগ পর্যন্ত অবশ্য বেচে থাকা খুবই জরুরী, ২৫ বছর এমন দুরে নয়, সুতরাং জীবনের যত্ন নেয়া দরকার৷ আর প্রস্তুতিও নেয়া দরকার৷ হিমু আর আমি একটা প্রজেক্ট হাতে নিলাম এবার, মেশিনকে দিয়ে বাংলা ছড়া লেখাব, ৪/৫ লাইনের, সৃজনশীল ছড়া, পুরোপুরি মেশিনের লেখা৷ অবশ্য এখন মনে হচ্ছে ৪/৫ লাইন বের করতে আমার ডুয়াল কোর আড়াই গিগা হার্জের মেশিনের কয়েকদিন লাগবে৷ তাতে অসুবিধা নেই, আমার হাতে সময় আছে৷

Labels:

1 Comments:

Anonymous limonhasan said...

আপনি কি সামুদ্রিক মাছ, গলদা চিংড়ি, চিংড়ি, তাজা জল-মাছ, কাঁকড়া, ইত্যাদি তাজা বা টাটকা এবং ফ্রমালিন মুক্ত মাছ খোঁজ করছে? তাজা বা টাটকা এবং ফ্রমালিন মুক্ত মাছ খোঁজে পেতে পারেন এখানে freshfishbd.

Thursday, June 25, 2015 11:09:00 PM  

Post a Comment

Links to this post:

Create a Link

<< Home

eXTReMe Tracker